Breaking News

পীরগঞ্জে পরকিয়ায় বাঁধা লাশ হলো শ্বাশুড়ী:শ্বশুড় গ্রেফতার


[শাহ্ রেজাউল করিম] রংপুরের পীরগঞ্জে পুত্রবধুর সাথে পরকীয়ায় বাঁধা দেয়ায় লাশ হলো শ্বাশুড়ী পোশাগী বেগম। গত রোববার উপজেলার পাঁচগাছী ইউনিয়নের জাহাঙ্গীরাবাদ মধ্য পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ এই ঘটনায় শ্বশুড় কফিল উদ্দিনকে আটক করে গতকাল সোমবার জেল হাজতে পাঠিয়েছে। 

মামলা ও এলাকাবাসি সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার জাহাঙ্গীরাবাদ মধ্যপাড়া গ্রামের কফিল উদ্দিনের সাথে প্রায় ৪০ বছর আগে একই ইউনিয়নের পানেয়া গ্রামের পোশাগী বেগমের বিয়ে হয়। তাদের সংসারে ২ ছেলে-মেয়ের জন্ম হয়। 

শ্বশুড় কফিলের ছেলে বহুরুল ইসলাম (৩৫) তার স্ত্রী মনিরা বেগমকে বাড়ীতে রেখে প্রায় ১০ বছর ধরে রাজধানী ঢাকায় রিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে। মাঝে মধ্যে বাড়ীতে আসা-যাওয়া করে। সাম্প্রতিক সময়ে ছেলে বহুরুল দীর্ঘদিন বাড়ীতে অনুপস্থিত থাকার সুযোগে শ্বশুড় কফিল উদ্দীন তার পুত্রবধু মনিরার সাথে পরকিয়ায় জড়িয়ে পড়ে। 

এ নিয়ে গ্রামে একাধিকবার শালিশে কফিল ঘটনার সত্যতা স্বীকারও করে। এ ব্যাপারে ছেলে বহুরুলকে তার মা পোশাগী বেগমসহ প্রতিবেশিরা এ ঘটনা অবগত করলেও সে তার বাবার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। 

এক পর্যায়ে গত ২৭ মে গভীর রাতে কফিল তার পুত্রবধুর সাথে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। এসময়  শ্বাশুড়ী পোশাগী বেগম তাদের হাতে নাতে ধরে ফেলে। এতে বাঁধা দেয়ায় কফিল তার স্ত্রী পোশাগীকে এলোপাতাড়ী মারপিট করলে সে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে। 

এমতাবস্থায় বাড়ীতে চিকিৎসাধী অবস্থায় গত রোববার বিকেলে পোশাগী মারা যায়। এ ঘটনায় পোশাগীর ছোট ভাই মীর মোশারফ হোসেন বাদী হয়ে তার ভগ্নীপতি কফিল, ভাগনে বউ মনিরা, ভাগনে বহুরুলকে আসামী করে পীরগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছে। 

ওসি সরেস চন্দ্র বলেন, মামলার প্রধান আসামী শ্বশুড় কফিল উদ্দীনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্য আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশি তৎপরতা চলছে। লাশ মর্গে প্রেরন করা হয়েছে।

No comments