Breaking News

জন্ম তারিখ সংশোধন ও পসিবল ডুপ্লিকেট অনুমোদন সংক্রান্ত আপডেট তথ্য

জন্ম তারিখ সংশোধন ও পসিবল ডুপ্লিকেট অনুমোদন সংক্রান্ত আপডেট তথ্য


(১) এখন থেকে জন্ম তারিখ সংশোধনের আবেদন প্রথমে উচ্চতর অনুমোদনের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার/ উপপরিচালক, স্থানীয় সরকার এর নিকট প্রেরণ হবে। উচ্চতর অনুমোদনের পর তা অধিকতর অনুমোদনের জন্য রেজিস্ট্রার জেনারেল এর কার্যালয়ে চলে যাবে। রেজিস্ট্রার জেনারেল অফিস আবেদনের ক্রস চেক করবেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার/ উপপরিচালক, স্থানীয় সরকার কর্তৃক অনুমোদন যথাযথ হলে রেজিস্ট্রার জেনারেল অফিস আবেদনটি অনুমোদন করবেন, যদি সংযুক্তকৃত ডকুমেন্টস উপযুক্ত না হয় সেক্ষেত্রে আবেদনটি বাতিল হবে।
ডকুমেন্ট উপযুক্ত কিনা কিভাবে বুঝবেন? এ ক্ষেত্রে উদাহরণ স্বরুপ বলা যায়- যদি কোন ব্যক্তির জন্ম নিবন্ধন ২০১০ সালে হয়ে থাকে এবং ঐ ব্যক্তি যদি নিবন্ধনের তারিখের পরে কোন পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে অর্থাৎ ব্যক্তিটি যদি ২০১১ এর পর, ধরে নিলাম ২০১৮ সালে জেএসসি বা এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে এবং সেই পাবলিক পরীক্ষার সনদ প্রমাণক হিসেবে দেখিয়ে জন্ম তারিখ সংশোধনের আবেদন করেছেন তাহলে তার আবেদনটি বাতিল হবে। কারন জন্ম নিবন্ধন অনুযায়ী তার বিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার কথা এবং সে অনুযায়ী তার সকল পরীক্ষার নিবন্ধন হওয়ার কথা।
ঠিক একই ভাবে জন্ম নিবন্ধনের তারিখের পর প্রাপ্ত অন্য যে কোন ডকুমেন্টস জন্ম নিবন্ধনের জন্ম তারিখ সংশোধনের ক্ষেত্রে উপযুক্ত হিসেবে গ্রহণ করা হবে না।
(২) পসিবল ডুপ্লিকেট আগামী মাস থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার/ উপপরিচালক, স্থানীয় সরকার অনুমোদন (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) করতে পারবেন।

কোন মন্তব্য নেই